কান্ডের প্রকারভেদ | Types of stem

টেলিগ্ৰামে জয়েন করুন

কান্ডের প্রকারভেদ -Types of stem : সুপ্রিয় ছাত্রছাত্রীরা আজকের এই পর্বটিতে শেয়ার করলাম কান্ডকে কয় ভাগে ভাগ করা যায় বা কান্ডের প্রকারভেদ সম্পর্কে। চলুন দেখে নেওয়া যাক কান্ডের প্রকারভেদ গুলি।

কান্ডের প্রকারভেদ | Types of stem

কান্ড কাকে বলে :

ভ্রূণমুকুল থেকে উৎপন্ন মাটির ওপরে অবস্থিত পর্ব, পর্বমধ্য, মুকুল প্রভৃতি সমন্বিত, আলোক অনুকূলবর্তী ও অভিকর্ষ প্রতিকূলবর্তী বিটপ তন্ত্রের প্রধান অক্ষকে কান্ড বলে।

কান্ডের প্রকারভেদ :

কান্ডকে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা যায় যথা – 1. ঋজু কান্ড ও 2. দুর্বল কান্ড

1. ঋজু কান্ড কাকে বলে :

যে সকল কান্ড মাটির ওপর খাড়াভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে পারে, তাদের ঋজু কান্ড বা সবল কান্ড বলে। ঋজু বা সবল কাণ্ডযুক্ত উদ্ভিদগুলিকে তিন ভাগে ভাগ করা যায়। যথা- A. বীরুৎ, B. গুল্ম এবং C. বৃক্ষ।

A. বীরুৎ :

যেসব উদ্ভিদের কাণ্ড নরম, কাষ্ঠহীন ও সরস, তাদের বীরুৎ বলে। জীবনকাল অনুযায়ী বীরুৎ নিম্নলিখিত প্রকারের হয়-

i. ক্ষণজীবী : যেসব বীরুৎ জাতীয় উদ্ভিদের মাত্র কয়েকদিনের মধ্যেই জীবনচক্র সম্পন্ন হয়, তাদের ক্ষণজীবী বলে। উদাহরণ- Balanites aegyptiaca
ii. একবর্ষজীবী : যেসব বীরুৎ জাতীয় উদ্ভিদের জীবনচক্র একবছর বা একটি ঋতুতেই সমাপ্ত হয়, তাদের একবর্ষজীবী বলে। উদাহরণ- ধান , সরষে ইত্যাদি।
iii. দ্বিবর্ষজীবী : যেসব বীরুৎ জাতীয় উদ্ভিদ দুটি বছর বা দুটি ঋতু পর্যন্ত বেঁচে থাকে, তাদের দ্বিবর্ষজীবী বলে। উদাহরণ- মুলো, গাজর ইত্যাদি।

iv. বহুবর্ষজীবী : যেসব বীরুৎ জাতীয় উদ্ভিদ দুটি ঋতু বা দু-বছরের বেশি সময় পর্যন্ত বেঁচে থাকে, তাদের বহুবর্ষজীবী বলে। উদাহরণ-আদা, কলাবতী ।

B. গুল্ম :

কাষ্ঠল, ক্ষুদ্র কাণ্ডবিশিষ্ট ও শাখা-প্রশাখাযুক্ত ঝোপের মতো উদ্ভিদকে গুল্ম বলে। উদাহরণ-জবা,গন্ধরাজ ইত্যাদি।

C. বৃক্ষ :

দীর্ঘ, কাষ্ঠল, স্তম্ভের মতো গুঁড়িবিশিষ্ট উদ্ভিদকে বৃক্ষ বলে। বৃক্ষ নিম্নলিখিত প্রকারের হয়-

i. অশাখ কাণ্ড : এইপ্রকার উদ্ভিদের কাণ্ড লম্বা ও শাখাবিহীন। উদাহরণ- নারকেল।
ii. পিরামিডাকার : এইপ্রকার উদ্ভিদের কাণ্ডটি অনির্দিষ্টভাবে দীর্ঘায়িত হয় এবং এর পার্শ্বদেশী শাখাগুলি অগ্রোন্মুখভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উদ্ভিদকে পিরামিডের মতো দেখতে হয়। উদাহরণ- দেবদারু
iii. গম্বুজাকার : এই প্রকার উদ্ভিদের কাণ্ড থেকে নিয়ত শাখাবিন্যাস পদ্ধতি

2. দুর্বল কান্ড কাকে বলে :

যেসব কান্ড নরম মাটির উপর খাড়াভাবে দাঁড়িয়ে থাকতে পারে না, তাদের দুর্বল কান্ড বলে ।  দুর্বল কান্ডের উদ্ভিদ তিন প্রকারের হয় যথা- A. ব্রততী B. অনুগামিক C. রোহিণী

A. ব্রততী বা লতানো :

যেসব দুর্বল কান্ডযুক্ত অর্ধবায়বীয় উদ্ভিদ মাটির ওপর অনুভূমিকভাবে শায়িত অবস্থায় বৃদ্ধি পায় এবং যাদের কান্ডেরর পর্ব থেকে অস্থানিক মূল নির্গত হয়, তাদের ব্রততী বলা হয়। উদাহরণ—দূর্বা ঘাস, রাঙা আলু ইত্যাদি।

B. অনুগামিক :

যেসব দুর্বল কান্ডযুক্ত অর্ধবায়ব উদ্ভিদ মাটিতে অনুভূমিকভাবে শায়িত অবস্থায় বৃদ্ধি পায় এবং যাদের কাণ্ডের পর্ব থেকে অস্থানিক মূল সৃষ্টি হয় না, তাদের অনুগামিক বলে। অনুগামিক তিন প্রকারের হয়, যথা-

i. শয়ান বা শায়িত : অনুগামিক উদ্ভিদের কান্ড ও শাখাগুলি যখন শায়িত অবস্থায় থাকে এবং মোটামুটি একই অভিমুখে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়, তখন তাকে শয়ান বলে। উদাহরণ—পুঁই

ii. ঊর্ধ্বাগ্র : অনুগামিক উদ্ভিদের কান্ড ও শাখাগুলির অগ্রভাগ যখন মাটির সামান্য ওপরে উঠে থাকে এবং শাখাগুলি মোটামুটি একই অভিমুখে বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়, তখন তাকে ঊর্ধ্বাগ্র বলে। উদাহরণ—বাসন্তী

iii. পরিব্যাপ্ত : অনুগামিক অর্ধবায়ব উদ্ভিদের কান্ডের শাখাগুলি যখন সকল অভিমুখেই বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হয়, তখন তাকে পরিব্যাপ্ত বলে। উদাহরণ- ইউফরবিয়া , পুনর্নবা ইত্যাদি।

C. রোহিণী :

যেসব দুর্বল কাণ্ডের বায়বীয় উদ্ভিদেরা যখন কোনো অবলম্বনকে কাণ্ড বা মূল বা আকর্ষ প্রভৃতির সাহায্যে জড়িয়ে ওপরে ওঠে ও বৃদ্ধি পায়, তাদের রোহিণী বলে। রোহিণীদের নিম্নলিখিত ভাগে ভাগ করা যায়, যথা-

i. বল্লি বা কাণ্ড রোহিণী : রোহিণী উদ্ভিদ যখন কান্ডের সাহায্যে কোনো অবলম্বনকে জড়িয়ে ওপরে ওঠে, তাদের বল্লি বা কান্ড রোহিণী বলে। উদাহরণ—শিম , অপরাজিতা ইত্যাদি। যে সব বল্লি অবলম্বনকে বৃদ্ধির অভিমুখে নিজের বাম দিক থেকে ডান দিকে বেষ্টন করে, তাদের দক্ষিণাবর্ত এবং যে সব বল্লি নিজের ডান দিক থেকে বাম দিকে বেষ্টন করে তাদের বামাবর্ত বল্লি বলে। শিম গাছে দক্ষিণাবর্ত এবং অপরাজিতাতে বামাবর্ত লক্ষ করা যায়।

ii. আকর্ষ রোহিণী : রোহিণী উদ্ভিদ যখন আকর্ষের সাহায্যে কোনো অবলম্বনকে জড়িয়ে ওপরে ওঠে, তাদের আকর্ষ রোহিণী বলে। উদাহরণ—মটরশুঁটি (শীর্ষ যৌগপত্র, ঝুমকোলতা (কাক্ষিক মুকুল)

iii. মূল রোহিণী : যখন রোহিণী উদ্ভিদ কান্ডের পর্ব থেকে উৎপন্ন অস্থানিক মূলের সাহায্যে কোনো অবলম্বনকে জড়িয়ে ওপরে ওঠে, তাদের মূল রোহিণী বলে। উদাহরণ—পান, গজপিপুল।

iv. অঙ্কুশ রোহিণী : রোহিণী উদ্ভিদ যখন উদ্ভিদের কোনো অংশ থেকে উৎপন্ন অঙ্কুশ বা হুকের সাহায্যে কোনো অবলম্বনকে আঁকড়ে ধরে ওপরে ওঠে তখন তাদের অঙ্কুশ রোহিণী বলে। উদাহরণ- কাঁঠালিচাঁপা ।

v. কণ্টক রোহিণী : রোহিণী উদ্ভিদ যখন দেহে উৎপন্ন কণ্টকের সাহায্যে কোনো অবলম্বনকে জড়িয়ে ধরে ওপরে ওঠে তখন তাদের কণ্টক রোহিণী বলে। উদাহরণ— বেত গাছের গাত্র কণ্টক, বাগানবিলাসের শাখা কণ্টক।

আরও পড়ুন : 

কান্ডের বৈশিষ্ট্য ও অঙ্গসংস্থান ? 

Leave a Comment