তৎসম শব্দ কাকে বলে ? তৎসম শব্দ কয় প্রকার ও কি কি এবং চেনার উপায় উদাহরণ সহ

টেলিগ্ৰামে জয়েন করুন

তৎসম শব্দ কাকে বলে

সুপ্রিয় বন্ধুরা আমরা আজকে আলোচনা করব তৎসম শব্দ কাকে বলে ? তৎসম শব্দ কয় প্রকার ও কি কি ? এই টপিকটি নিয়ে সুতরাং আর দেরি না করে তোমরা অবশ্যই দেখে নাও।

বাংলা শব্দ ভান্ডারের তিনটি মৌলিক শব্দের মধ্যে অন্যতম হলো তৎসম শব্দ

তৎসম শব্দ কাকে বলে :

তৎসম শব্দ কাকে বলে জানার আগে তৎসম শব্দের অর্থ কি সেটা জানা একান্ত প্রয়োজন “তৎ” কথাটি আক্ষরিক অর্থ তার, “সম” কথাটির অর্থ হল সমান, সুতরাং তৎসম কথাটির অর্থ হল তার সমান

যে সমস্ত শব্দগুলো সংস্কৃত ভাষা থেকে কোনরকম পরিবর্তন ছাড়াই সরাসরি ভাবে বাংলা ভাষায় প্রবেশ করে বাংলা ভাষার নিজস্ব শব্দে পরিণত হয়েছে সেই সমস্ত শব্দ গুলিকেই তৎসম শব্দ বলে।

অপর ভাবে তৎসম শব্দ কাকে বলে বলতে গেলে প্রাচীন ভারতে আর্যরা যে সকল ভাষা ব্যবহার করত সেইসব ভাষাগুলি সরাসরি বাংলা ভাষায় মিশে অবিকৃত ভাবে বাংলা ভাষায় টিকে আছে, সে সমস্ত শব্দকে তৎসম শব্দ বলে।

উদাহরণ : প্রীতি, প্রণাম, পর্বত, নদী, নারী, গ্ৰহ, নক্ষত্র, চন্দ্র, সূর্য, বৃক্ষ, মৃত‍্যু, ভ্রাতা, ভগ্নি, জল, জয়, শুভ্র, সুন্দর, বৃষ্টি, গৃহিণী, সত‍্য, ক্ষুধা, নিমন্ত্রণ, পুস্প, কাব‍্য, বাক‍্য, মুক্তি, মূর্খ, পন্ডিত, মন্ত্র, পত্র, হস্ত, মহাশয়, মস্তক ইত্যাদি।

তৎসম শব্দ কয় প্রকার ও কি কি :

এই তৎসম শব্দকে অনেক ভাষাবিদ আবার দুই ভাগে ভাগ করেছেন যথা – 1. সিদ্ধতৎসম শব্দ এবং 2. অসিদ্ধতৎসম শব্দ।

সিদ্ধতৎসম শব্দ কাকে বলে :

যে সমস্ত শব্দগুলি বৈদিক বা সংস্কৃত সাহিত্য থেকে সৃষ্ট এবং ব্যাকরণ সিদ্ধ সেই সমস্ত শব্দগুলিকে সিদ্ধ তৎসম শব্দ বলা হয়। যেমন- কৃষ্ণ, লতা, সূর্য, মিত্র ইত্যাদি।

অসিদ্ধতৎসম শব্দ কাকে বলে :

যে সমস্ত শব্দগুলি বৈদিক বা সংস্কৃত সাহিত্য থেকে সৃষ্ট নয় এবং সংস্কৃত ব্যাকরণ সিদ্ধ নয়, সেই সমস্ত শব্দগুলিকে অসিদ্ধতৎসম শব্দ বলে। যেমন- কৃষাণ, ঘর, ডাল ইত্যাদি।

তৎসম শব্দ চেনার উপায় :

1. “ণ” যুক্ত সকাল শব্দই হচ্ছে তৎসম শব্দ।যেমন- কর্ণ, স্বর্ণ, করণ, মণি, ফণি, ঋণ প্রভৃতি।

2. যে সকল শব্দ বিসর্গ যুক্ত এবং বিসর্গ সাধিত সেগুলিই তৎসম শব্দ। যেমন-প্রাতঃকাল, দুঃখ, মনঃকষ্ট প্রভৃতি।

3. যে সকল শব্দের শেষে তব‍্য, অনিয় থাকে তাহলে সেগুলি তৎসম শব্দ। যেমন- কর্তব্য, পঠিতব‍্য, করণীয়, লক্ষণীয় প্রভৃতি।

4. বাংলা বানানের নিয়ম অনুযায়ী ঈ, ঊ, ঋ থাকলে সেগুলি তৎসম শব্দ । যেমন – ঈর্ষা, ঊষা, ঋণ প্রভৃতি।

5. বহুবচনবাচক গন , বৃন্দ, মন্ডলী, আবলি, গুচ্ছ, দাম, নিকর, পুঞ্জ, মালা, রাজি, রাশি প্রকৃতি থাকলে সেগুলি তৎসম শব্দ। যেমন- শিক্ষকবৃন্দ, শ্রোতামন্ডলী, কবিতাবলি, পর্বতমালা প্রভৃতি।

6. শব্দের শেষে তা, ত্ব, তর, তম, বান, মান, এয়, র্য রবিতে থাকলে সেগুলি তৎসম শব্দ। যেমন- কর্তৃত্ব, উচ্চতর, কার্য প্রভৃতি।

7. মহাকাশ সম্পর্কিত সকল শব্দই তৎসম শব্দ। যেমন চন্দ্র, সূর্য, নক্ষত্র প্রভৃতি।

8. হিন্দু ধর্ম সংক্রান্ত নাম যেমন- বিভিন্ন দেব দেবীর নাম সেগুলি তৎসম শব্দ হয়।

আরও পড়ুন :

শব্দ কাকে বলে ? কয় প্রকার ও কি    কি ? 

সন্ধি কাকে বলে ? কয় প্রকার ও কি       কি ? 

1 thought on “তৎসম শব্দ কাকে বলে ? তৎসম শব্দ কয় প্রকার ও কি কি এবং চেনার উপায় উদাহরণ সহ”

Leave a Comment